শেখ হাসিনাকে আগে পদত্যগ করতে বলুনঃ তারপরে নির্বাচনের কথা বলতে আসবেনঃ মার্কিন রাষ্ট্রদূত

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের মার্কিন রাষ্ট্রদূতের কাছে জানতে চাইলেন, ‘তোমার দেশে কি নির্বাচনের সময় প্রেসিডেন্ট পদত্যাগ করেন? কিংবা তোমার দেশে কি নির্বাচন কোন অন্য সরকারের অধীনে হয়?’ জবাবে মার্কিন রাষ্ট্রদূত স্টিফেন ব্লুম বার্নিকাট জানালেন ‘না’।এরপর ওবায়দুল কাদের বললেন, ‘বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক দেশে যেভাবে নির্বাচন হয়, বাংলাদেশেও সেভাবেই নির্বাচন হবে। নির্বাচন হবে নির্বাচন কমিশনের অধীনে।

’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনে আসবে কিনা সেটা তাদের সিদ্ধান্ত। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাও প্রতিদ্বন্ধি দলকে নির্বাচনে আনা অন্য দলের দায়িত্বের মধ্যে পরে না।’গতকাল সোমবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাসভবনে নৈশভোজে আমন্ত্রিত হয়ে ওবায়দুল কাদের ঐ মন্তব্য করেন। আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দল নৈশভোজে আমন্ত্রিত হয়েছিলেন। নৈশভোজের ফাঁকে বার্নিকাট ওবায়েদুল কাদেরের সঙ্গে কয়েক মিনিট একান্তে বৈঠক করেন।বৈঠকে মার্কিন রাষ্ট্রদূত জানতে চান, আগামী সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে আনতে সরকার কোনো উদ্যোগ নেবে কিনা?

এবং সহায়ক সরকারের ব্যাপারে সরকারের মনোভাব কি? জবাবে ওবায়দুল কাদের ঐ মন্তব্য করেন। এছাড়াও নৈশভোজের ফাঁকে ফাঁকে আসন্ন দুই সিটির নির্বাচন নিয়ে কথা বলেন বার্নিকাট ও আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। অবশ্য বৈঠকে বেগম খালেদা জিয়ার কারান্তরীন বিষয়ে কোনো কথা হয়নি।আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদকের নেতৃত্বে নৈশ ভোজে আরো অংশ নেন মো: জমির , সভাপতি মন্ডলীর সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক, ফারুক খান, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাসুদ চৌধুরী, আন্তর্জাতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল। মার্কিন দূতাবাসের পক্ষ থেকে ছিলেন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বৃন্দ।মার্কিন রাষ্ট্রদূত খুব শিগগীরই বিএনপির সংগেও এরকম বৈঠক করবেন বলে জানা গেছে।

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে onebd.news er ফেসবুক পেজে লাইক দিন

inShare