খালেদা জিয়ার জামিন স্থগিত

কুমিল্লায় নাশকতার দুই মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দেয়া হাইকোর্টের জামিন আদেশ স্থগিত করেছে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত। আজ মঙ্গলবার চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বিএনপির চেয়ারপারসনের জামিনে স্থগিতাদেশ দিয়ে মামলাটি পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠান।

চেম্বার আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। খালেদা জিয়ার পক্ষে খন্দকার মাহবুব হোসেন শুনানি করেন। এর আগে গতকাল বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের হাই কোর্ট বেঞ্চ কুমিল্লার নাশকতার দুই মামলায় খালেদা জিয়াকে ছয় মাসের জামিন দিয়েছিলেন।

যা ঘটেছিল এই মামলা নিয়ে ইতিপূর্বে :কুমিল্লার হত্যা ও নাশকতার দুই মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন স্থগিত চেয়ে চেম্বার আদালতে আবেদন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাষ্ট্রপক্ষ।

সোমবার দুই মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন হওয়ার পর সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, আমরা ইতোমধ্যে খালেদা জিয়ার জামিন আদেশ স্থগিত চেয়ে আবেদন রেডি করেছি। আজকেই চেম্বার আদালতে যাবো।

বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ কুমিল্লায় দুই মামলায় জামিন দেন। তবে নড়াইলের মানহানির মামলা উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দেয় আদালত। এ মামলা বিচারিক আদালতের পরবর্তী আইনি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে হাইকোর্টে আসতে বলেছে আদালত।

গত ২০ মে কুমিল্লা ও নড়াইলের তিন মামলায় জামিন চেয়ে আবেদন করেন খালেদা জিয়া। গত ১৬ মে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে দেওয়া হাইকোর্টের জামিন বহাল রাখে আপিল বিভাগ। তবে তার কারামুক্তির জন্য আরও ছয়টি মামলায় জামিন নিতে হবে। পাশাপাশি চারটি মামলায় হাজিরা পরোয়ানা প্রত্যাহারের প্রয়োজন রয়েছে।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হয় খালেদা জিয়ার। রায়ের পরপর তাকে নাজিম উদ্দিন রোডের পুরোনো কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর থেকে তিনি সেখানেই আছেন।