রশিদ খানকে নাগরিকত্ব দিয়ে রেখে দিতে চায় ভারত ! এইমাত্র আফগানিস্তান জানিয়ে দিল তাদের চূড়ান্ত সিধান্ত

সবার মুখের মুখে একজনের নামই সর্বত্র আলোচান। তিনি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ আফগানিস্তানের লেগ স্পিনার রশিদ খান। চলমান আইপিএলে তার অবদার অতুলনীয়। এবারে আইপিএলে সানরাইজার্সকে ফাইনালে তুলতে তিনি একাই অগ্রনী ভুমিকা পালন করেছে।রশিদ খানের অলরাউন্ডার নৈপুন্যে গতকাল ২৫ মে দ্বিতীয় কোয়ালিফাই ম্যাচে কলকাতাকে হারিয়ে দ্বিতীয় বারের মত ফাইনাল নিশ্চিত করলো হায়দারাবাদ। রশিদ খান ব্যাট হাতে করেন ১০ বলে ৩৪ রান। পরে বল হাতে ৪ ওভারে ১৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট তুলে নেন।

আর এতে ১৭৫ রানে লক্ষ্যে খেলতে নামা কলকাতা ১৬০ রান করতে সক্ষম হয় রশিদ নামের আরবি অর্থ, সঠিক পথে পরিচালিত একজন।ওটা একটু বদলে নেওয়া যেত। কারণ, এই রশিদ শুধু নিজে সঠিক পথে চালিত হচ্ছেন না, গোটা দেশকে হাত ধরে আলোর দিশা দেখাচ্ছেন। আফগানিস্তানের রুক্ষ ভূমি ছাড়িয়ে যাঁর ব্যপ্তি এখন অনেক দূর পর্যন্ত ছড়িয়েছে।এমন অলরাউন্ড পারফরম্যান্স তো অনেকে করেন। কিন্তু কই, তাদের নিয়ে সবসময় এথ মাতামাতি তো হয় না! তবে রশিদকে নিয়ে হচ্ছে। কারণ, তিনি একটা যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশকে প্রতিনিধিত্ব করছেন।

মাত্র ১৯ বছর বয়সে রশিদ খান ক্রিকেটের অ্যাম্বাসাডর হয়ে উঠেছেন। কলকাতার বিরুদ্ধে তাঁর পারফরম্যান্স এখন চর্চার কেন্দ্রে। ভারতীয় ক্রিকেট সমর্থকরা তো রশিদ বলতে অজ্ঞান। কোনও কোনও ভারতীয় সমর্থক আবার রশিদকে ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়ার দাবিও তুলে দিলেন।
আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডকে কেউ কেউ আবার একটু মজা করে বললেন, আপনারা আমাদের রবীন্দ্র জাদেজাকে নিয়ে নিন। বদলে রশিদকে ভারতের হয়ে খেলার অনুমতি দিয়ে দিন। কলকাতার বিরুদ্ধে রশিদের পারফরম্যান্সের পর এসব তরজা সোশ্যাল সাইটজুড়ে চলছেই।

তবে রশিদকে ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়ার দাবি একটা সময় এতটাই জোরালো হয়ে ওঠে যে ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ হস্তক্ষেপ করেন।সুষমা স্বরাজ টুইটে লেখেন, ”এই ব্যাপারে সব টুইট আমি দেখেছি। কারও নাগরিকত্ব পাওয়ার সমস্ত দিক দেশের গৃহমন্ত্রকের উপর নির্ভর করে।” অবশ্য এরকম একটা টুইট করে কিছুক্ষণ পরেই তা মুছে দেন তিনি।রশিদ খানকে নিয়ে ভারতে খেলানোর দাবিদাওয়া এতটাই জোরালো হয়ে ওঠে যে আফগান ক্রিকেট বোর্ডও চুপ করে বসে থাকতে পারেনি।

আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতি আসরাফ ঘানিও রশিদকে নিয়ে টুইট করেন।তিনি তার টুইটে লিখেছেন, ”গোটা আফগানিস্তান তাদের হিরোকে নিয়ে গর্ববোধ করছে। ভারতীয় বন্ধুদের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। ওদের দেওয়া মঞ্চে রশিদ পারফর্ম করে নিজের প্রতিভা দেখাতে পেরেছে। গোটা ক্রিকেট বিশ্বের কাছে ও সম্পদের মতো।’ রশিদ খানকে কী নাগরিকত্ব দিয়ে রেখে দিবে ভারত? তবে আফগানিস্তান বলছে ওকে দেব না। এটাই নাকি তাদের চূড়ান্ত সিধান্ত ।