দ্বাদশ সংসদকে ‘তেলেসমাতি’র বললেন ফারুক

দ্বাদশ জাতীয় সংসদকে ‘তেলেসমাতি’র সংসদ হিসেবে অভিহিত করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক। তিনি বলেন, সংসদ চলছে। এটা একটা তেলেসমাতি সংসদ। এই সংসদকে মুরুব্বিরা বলেন, আওয়ামী লীগের ‘এ’ টিম আর ‘বি’ টিম। এই সংসদে জনগণ ভোট দিতে পারেনি। এই সংসদ নির্বাচনে জনগণ অংশগ্রহণ করেনি। তবুও এই সরকার ক্ষমতার জোরে নির্বাচন কমিশনের কারচুপিতে ক্ষমতায় বসে ১০ জানুয়ারি শপথ নিয়ে সরকার গঠন করেছে। সোমবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে তিনি একথা বলেন।

ফারুক বলেন, ‘এই সংসদে নাকি একটা বিরোধী দল আছে তাও ১১ জনের। সেটাও বানিয়ে দিয়েছেন বর্তমান সরকার প্রধান। আওয়ামী লীগের বদান্যতার কারণেই আজ সংসদে বিরোধী দল তৈরি হয়েছে। এই বিরোধী দল দিয়ে বাংলাদেশের সার্বিক সমস্যার সমাধান হবে না। অর্থনৈতিক মেরুদণ্ড ভেঙে গিয়েছে তাকে সোজা করতে এই সরকার পারবে না। মুরুব্বিরা বলেন, এই সংসদ টিকে থাকতে পারে না। জনগণ বলে এই সংসদ আর টিকে থাকার কথা নয়।

কারা নির্যাতনে বিএনপির নেতা-কর্মীর মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, যে দেশে মানবাধিকার নেই। সেই দেশে সরকারের কারা কর্তৃপক্ষের কথা আমরা বিশ্বাস করতে পারি না। বিএনপি মনে করে, বাংলাদেশের কারাগারে যে ১৫ নেতা-কর্মীকে নির্যাতন করে মেরে ফেলেছে তার হিসাব একদিন দিতে হবে।

ফারুক বলেন, বাংলাদেশের সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি যেভাবে ঘোলাটে হচ্ছে। যেভাবে দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতি চলছে, সেখানে নতুন সিন্ডিকেট তৈরি করে পেঁয়াজ-রসুন-চাল-ডাল-চিনির দাম বৃদ্ধির পরিকল্পনা করছে।

জাতীয়তাবাদী নাগরিক পরিষদের উদ্যোগে ‘দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতি এবং একতরফা নির্বাচন বাতিলের দাবি’তে মানববন্ধন হয়। সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি এসএম আনিসুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক গাফফার হোসেনের সঞ্চালনায় আরও বত্তৃদ্ধতা করেন বিএনপির আবদুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, তাইফুল ইসলাম টিপু, কৃষক দলের কাজী মনিরুজ্জামান মুনির, জাহাঙ্গীর আলম, ইসমাইল হোসেন সিরাজী, কাদের সিদ্দিকী, নাগরিক পরিষদের জাহাঙ্গীর চৌধুরী প্রমুখ।