মানুষের দোয়া ও ভালোবাসায় সিক্ত হলেন বর্ষীয়ান জামায়াত নেতা মরহুম আব্দুল লতিফ

মানুষের ভালোবাসা আর শ্রদ্ধায় শেষ শয্যায় শায়িত হলেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সাবেক কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য, নীলফামারী জেলার সাবেক আমির ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ।

বুধবার (৩১ জানুয়ারি) বেলা ৩টায় নীলফামারী বড় মাঠে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইমামতি করেন মরহুমের ছেলে আল ফারুক আল লতিফ। হাজার হাজার মানুষ জানাজায় অংশ নেয়। পরে জেলা জজকোর্ট সংলগ্ন শহরের কেন্দ্রীয় কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় ঢাকার ইবনে সিনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। তার বয়স হয়েছিল ৯২ বছর।

জানাজা পূর্ব বক্তব্যে জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা আবদুল হালিম বলেন, অ্যাডভোকেট আবদুল লতিফ ছিলেন একজন স্বনামধন্য সুশিক্ষক। তার ছাত্ররা আজ জাতীয় জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে দায়িত্ব পালন করছেন। তার সুদীর্ঘ সাংগঠনিক জীবন ছিল পরিকল্পিত, পরিচ্ছন্ন ও ত্যাগ-কুরবানিতে ভরপুর। তিনি একজন শিক্ষক, আইনজীবী, সংগঠক এবং সমাজসেবক ও জননেতা হিসেবে বহু মাত্রিক গুণের অধিকারী ছিলেন। তিনি দল-মত নির্বিশেষে সকলের কাছে ছিলেন শ্রদ্ধেয় ও সম্মানিত। তিনি নীলফামারী-২ আসনে কয়েক দফা জামায়াতের নমিনি হিসেবে জাতীয় নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে বিপুল সংখ্যক মানুষের ভালবাসা অর্জন করেছিলেন। তিনি দ্বীনি কাজে সবসময় কর্মতৎপর ও নিবেদিত প্রাণ ছিলেন। তিনি তৃণমূল থেকে সংগঠনের সর্বোচ্চ পর্যায় কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদের দায়িত্ব পালন করেছেন। নীলফামারীসহ রংপুর-দিনাজপুর অঞ্চলের সংগঠন পরিচালনায় তার অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি ত্যাগ ও কুরবানির প্রতীক ছিলেন।

মাওলানা আবদুল হালিম জানাজা নামাজে উপস্থিত মুসল্লীদের কাছে ভারপ্রাপ্ত আমিরে জামায়াত অধ্যাপক মুজিবুর রহমানের সালাম পৌঁছে দেন।

আরো বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ মাওলানা মমতাজ উদ্দিন, নীলফামারী জেলা আমির আবদুর রশিদ, দিনাজপুর দক্ষিণ জেলা আমির আনোয়ারুল ইসলাম, দিনাজপুর উত্তর জেলা আমির অধ্যক্ষ আনিসুর রহমান, ঠাকুরগাঁও জেলা আমির মাওলানা আব্দুল হাকিম, রংপুর মহানগর আমির মাওলানা এটিএম আজম, গাইবান্ধা জেলা আমির আব্দুল করিম সরকার, রংপুর জেলা আমির অধ্যাপক গোলাম রব্বানী, পঞ্চগড় জেলা আমির অধ্যাপক ইকবাল হোসেন, লালমনিরহাট জেলা আমির প্রভাষক আতাউর রহমানসহ নীলফামারী ও অন্যান্য জেলার নেতৃবৃন্দ।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান বেলাল, দিনাজপুর জেলার সাবেক আমির ও চিরির বন্দর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন মোল্লা।

জানাজায় সাবেক সংসদ সদস্য, জেলা বার ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন।