৩০ মে’র মধ্যে মহানগরের সব কমিটি

মহানগর বিএনপির সব ওয়ার্ড ও থানা কমিটি গঠন করে আগামী ৩০ মে’র মধ্যে কেন্দ্রে জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে দলের হাইকমান্ড। এ তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসান।তিনি জানান, দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ফোন করে এ নির্দেশ দিয়েছেন। নির্দেশ পেয়ে এরই মধ্যে তারা কাজ শুরু করে দিয়েছেন। কমিটি গঠনের জন্য তাদের দিন-রাত ব্যস্ত সময় পার করতে হচ্ছে। আগে থেকে বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ডের খসড়া কমিটি করা ছিল। সেগুলো ঘষামাজা করে দ্রুতই কমিটি গঠন করা যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মহানগর বিএনপির এক নেতা বলেন, যে কমিটি গত দুই যুগেও শেষ করা যায়নি সেটাই এক সপ্তাহের মধ্যে কীভাবে করা সম্ভব? এতে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদেরই সুবিধা হবে। তারা তাদের সুবিধামতো পকেট কমিটি করে কেন্দ্রে জমা দেবেন, ক্ষতি হবে বিএনপির।
তিনি বলেন, যখনই যাকে মহানগর কমিটির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তারা এ নিয়ে বাণিজ্য করেছেন। নিজেদের সুবিধামতো কমিটি দিয়ে লাভবান হয়েছেন। এখন যেভাবে কমিটি গঠন করা হবে, তাতে কোনো লাভ হবে না দলের।বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেল বলেন, কমিটি গঠনের কাজ আগেই শেষ করে আনা হয়েছিল। কিছু কমিটি অনুমোদনের জন্য কেন্দ্রে জমা দেওয়া আছে। বাকিগুলোর খসড়া তৈরি করা হয়েছে। সেগুলো ঘষামাজা করে দ্রুতই কমিটি গঠন করা সম্ভব হবে। পকেট কমিটি করার বিষয়ে তিনি বলেন, এসব কথা যারা বলেন, তারা নিজেরাই পকেট কমিটি করেছিলেন। তাই সবাইকে এক পাল্লায় মাপছেন। সরকারবিরোধী আন্দোলন সফল করে প্রমাণ করা হবে আমাদের গঠিত কমিটি যথার্থ।

মহানগর নেতাদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম দায়িত্বে থাকাকালীন মহানগরীর সব থানা ও ওয়ার্ডের কমিটি গঠন করেননি। তারই ধারাবাহিকতায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেলও কোনো কমিটি গঠন করতে পারেননি। এভাবে পার হয়ে গেছে দুই যুগেরও বেশি সময়। শুধু তাই নয়, মহানগর কমিটি দুই ভাগ করে গত বছরের ১৮ এপ্রিল ঘোষণার পর পার হয়ে গেছে এক বছর। তারাও পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে পারেননি। এখন এক সপ্তাহের মধ্যে তারা কী কমিটি গঠন করবেন, তা সহজেই বোধগম্য। তাদের ঘরে বসে পকেট কমিটি করতে হবে।

তারা বলেন, ঢাকা মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক ওয়ার্ড আছে ১০০টি এবং থানা ৫২টি। প্রতিটিরই আহ্বায়ক কমিটি রয়েছে। এ কমিটিগুলোকে পূর্ণাঙ্গ করা হবে। এর মধ্যে ধানমন্ডি থানা বিএনপির ওয়ার্ড কমিটি হালনাগাদ হয়নি গত ২৫ বছরে। এ ছাড়া খিলগাঁও, মোহাম্মদপুর, মতিঝিলসহ একাধিক থানা ও ওয়ার্ড কমিটির বয়স ১৫ বছরের বেশি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে আন্দোলনের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে এমন নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। মহানগর নেতাদের বলা হয়েছে, আগামী ৩০ মে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকীর আগেই এ কমিটি গঠন করে জমা দিতে হবে। জবাবে মহানগর নেতারা জানিয়েছেন, ৩০ মে’র মধ্যে সম্ভব না হলেও ৫ জুনের মধ্যে কমিটি গঠন করা যাবে।
সূত্র: শীর্ষ খবর