হক্বের পথে লড়তে হলে অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয়-ডাঃ শফিকুর রহমান

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী উত্তরের আমীর নির্বাচিত হয়েছেন মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন। গত ৫-১৩ নভেম্বর ভোট গ্রহণ করা হয়। রুকনদের গোপন ভোটে ২০২৩-২০২৪ কার্যকালের জন্য তিনি আমীর নির্বাচিত হন। শুক্রবার সকাল ১০টায় রাজধানীর একটি মিলনায়তনে মহানগরী উত্তরের মজলিসে শুরার বিশেষ অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়।

ঢাকা মহানগরী অঞ্চল পরিচালক ও সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা এটিএম মা’ছুমের পরিচালনায় সম্মেলনে আমীরে জামায়াত ডা.শফিকুর রহমান নির্বাচিত মহানগরী আমীরের শপথ কার্যক্রম পরিচালনা করেন। শপথ অনুষ্ঠান শেষে ঢাকা মহানগরী উত্তরের নব নির্বাচিত আমীর মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর Dr. Shafiqur Rahman। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা এটিএম মা’ছুম এবং কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের আমীর জনাব নুরুল ইসলাম বুলবুল। প্রধান অতিথির বক্তব্যের শুরুতে আমীরে জামায়াত এ সংগঠনের প্রধান প্রধান দায়িত্ব পালনকারী ব্যক্তিদের স্মরণ করে বলেন, যুগে-যুগে যারা হক্বের পথে লড়েছেন, তাদেরকে অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয়েছে। এ যুগেও তার ব্যতিক্রম নয়। ন্যায়ের পথে লড়াই করা কাউকে ন্যায়ভ্রষ্ট রায়ের মাধ্যমে ফাঁসি দিয়ে হত্যা করেছে, কাউকে কারাগারে রেখে তিলে তিলে হত্যা করেছে। একদিন জুলুমবাজদের জুলুমের অবসান ঘটবে, ইনশাআল্লাহ।আমীরে জামায়াত আরও বলেন, জামায়াতের শুরা সদস্যদের ভারসাম্যপূর্ণ হতে হবে।

আমাদের নিজ, স্বজন, পরিবার, প্রতিবেশী ও সমাজের মানুষের প্রতি ইনসাফ করতে হবে। মহান আল্লাহর কাছে খালেস দিলে ধর্ণা দিতে হবে। চোখের পানি দিয়ে দেশ-জাতির কল্যাণের জন্য আল্লাহ তা’য়ালা কাছে চাইতে হবে। আওয়ামী সরকারের বিভিন্ন জুলুমের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, স্বৈরাচারের যাতাকলে আমরা পিষ্ট। জনগণের পালস বুঝতে পেরে সরকার সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে রাজি হচ্ছেনা। জুলুমবাজ সরকারের শাসন থেকে আমরা মুক্তি চাই।সরকারকে বলবো সংবিধানের দোহাই না দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করুন।এতে জাতি ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাবে।

দেশের চরম অর্থনৈতিক দূরবস্থার বর্ণনা দিতে গিয়ে আমীরে জামায়াত বলেন, সরকার দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ধ্বংস করে ফেলেছে। ইসলামী ব্যাংকসহ ব্যাংক সেক্টরকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে গেছে। এমতাবস্থায় দাবি আদায়ে জনগণকে রাজপথে নেমে আসতে হবে। ঢাকা মহানগরী জনশক্তিদেরকে জনগণকে সংগঠিত করে আন্দোলন-সংগ্রামে সাহসী ভূমিকা রাখতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মাওলানা এটিএম মা’ছুম বলেন, আল্লাহ তা’য়ালা আম্বিয়া কেরামের উপর দায়িত্ব দিয়ে দুনিয়ায় পাঠিয়েছিলেন, একই দায়িত্ব সাহাবায়ে কেরামের ওপরও ছিলো। দায়িত্ব হলো আমানত। এ দায়িত্বের জন্য মহান আল্লাহর কাছে জবাবদিহিতা করতে হবে। এর জন্য কেউ লাঞ্চিত হবে, কেউবা মর্যাপূর্ণ হবে।

শহীদদের রেখে যাওয়া আমানত রক্ষায় দায়িত্বশীলদের তৎপর হতে হবে। জনাব নুরুল ইসলাম বুলবুল বলেন,অতীতের চাইতে ২০২৩-২০২৪ হবে চ্যালেঞ্জিং। যেকোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমরা দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করবো ইনশাআল্লাহ। সভাপতির বক্তব্যে সেলিম উদ্দিন বলেন, কোনো বিবেচনায় আমি এ দায়িত্ব পালনে নিজেকে যোগ্য মনে করিনা। আপনাদের দেয়া আমানত রক্ষায় আমি সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাবো। আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন, সার্বিক কাজে পরামর্শ ও সহযোগিতা করবেন।

তিনি বলেন, বিগত ১২ বছরে আওয়ামীলীগ দেশকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছে। এর থেকে উত্তরণে রাজধানীর জনশক্তিদেরকে ওয়ার্ড-ইউনিটকে মজবুত করে আন্দোলন-সংগ্রামে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। আগামী দিনে নিয়মতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনে রাজধানীবাসী যথাযথ ভূমিকা রাখবে ইনশাআল্লাহ। শুরা অধিবেশনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা মহানগরী উত্তরের নায়েবে আমীর জনাব আব্দুর রহমান মূসা, সেক্রেটারি ড. মুহাম্মদ রেজাউল করিমসহ কর্মপরিষদের সদস্যবৃন্দ।