রাসূল (সাঃ)এর অপমানে পুরো মুসলিম বিশ্ব যখন তীব্র নিন্দা জানিয়ে প্রতিবাদমুখর, আমরা তখন নিশ্চুপ কেন?

ড. তুহিন মালিক:

ভারতের ক্ষমতাসীন উগ্রবাদী দল বিজেপির মুখপাত্ররা রাসুলুল্লাহ (সাঃ)কে কটূক্তি ও চরম অবমাননাকর মন্তব্য করায় গোটা মুসলিম বিশ্ব প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো ইতিমধ্যে ভারতীয় পণ্য বয়কটের ডাক দিয়েছে। ওআইসি এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

আজকে সৌদি আরবের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, বিজেপি মুখপাত্ররা মহানবী(সা:)কে অপমান করেছে এবং সৌদি আরব এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছে। গতকাল কুয়েত ও কাতার ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে তলব করে তীব্র নিন্দা জানায়। কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন, ”কাতার চায়, ভারত সরকার অবিলম্বে ওই মন্তব্যের নিন্দা করুক এবং সারা বিশ্বের মুসলিমদের কাছে ক্ষমা চাক।” কুয়েতও ভারত সরকারকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে বলেছে।

ইরান ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে ডেকে জানিয়েছে, এটা কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না। প্রতিবেশী মুসলিম দেশ দুটি পাকিস্তান ও আফগানিস্তানও এর তীব্র নিন্দা করেছে।

ওমানের গ্র্যান্ড মুফতি শেখ আহমাদ বিন হামাদ আল-খলিল ভারতীয় পণ্য বয়কটের আহ্বান জানিয়ে বলেছেন- “এটি পৃথিবীর পূর্ব এবং পশ্চিমে প্রতিটি মুসলমানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ, এবং এটি এমন একটি বিষয় যা সমস্ত মুসলমানদেরকে এক জাতি হিসাবে উঠার আহ্বান জানায়।”

কুয়েতের ময়লা আবর্জনার ডাষ্টবিনগুলোতে এখন মোদির ছবি সংযুক্ত করে ভারতের বিরুদ্ধে বয়কটের আহ্বান জানানো হচ্ছে। ভারতের উগ্রবাদী ক্ষমতাসীন দল বিজেপির ক্রমাগত ইসলাম বিদ্বেষ, ঘৃণা এবং ইসলাম নির্মূলের নোংরা রাজনীতির সাম্প্রতিক অবস্থান ভারতকে কঠিন এক কূটনৈতিক সমস্যায় ফেলে দিয়েছে।

গালফ কোঅপারেশন কাউন্সিল বা জিসিসি-র সঙ্গে ভারত ২০২০-২১ সালে আট হাজার ৭০০ কোটি টাকার বাণিজ্য করেছে। উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদের সাথে ভারতের বাণিজ্য, যার মধ্যে কুয়েত, কাতার, সৌদি আরব, বাহরাইন, ওমান এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত রয়েছে। এর ফলে ভারতকে বিশাল অংকের বাণিজ্য ঝুঁকির মধ্যে পড়তে হচ্ছে। লক্ষ লক্ষ ভারতীয় মুসলিম দেশে ও মধ্যপ্রাচ্যে কাজ করে এবং লক্ষ লক্ষ ডলার রেমিট্যান্স দেশে ফেরত পাঠায়। ভারত জ্বালানি তেল আমদানির জন্যও মধ্যপ্রাচ্যের উপর নির্ভরশীল।

রাসূল (সাঃ)এর অপমানে পুরো মুসলিম বিশ্ব যখন তীব্র নিন্দা জানিয়ে প্রতিবাদমুখর, আমরা তখন নিশ্চুপ কেন? গোটা মুসলিম বিশ্ব যেভাবে ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে তলব করে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে বাংলাদেশের পক্ষ থেকেও রাষ্ট্রীয়ভাবে সেইরকম প্রতিবাদ ও নিন্দা জানানো হোক।

কারন, ‘আমাদের জীবনে রাসুল(সাঃ)এর সম্মানের প্রশ্নের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আর কোন ইস্যু থাকতে পারে না।’