বিএনপির বৃহত্তর ঐক্যের নেতা হচ্ছেন যিনি!

বিএনপির বৃহত্তর ঐক্যের নেতা হচ্ছেন যিনি দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো নতুন নতুন কৌশল অবলম্বন করছে। বিশেষ করে বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচনে না যেতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ শুরু করেছে বিএনপি। সংলাপের মূল লক্ষ্য ‘বৃহত্তর ঐক্য’ করে যুগপৎ আন্দোলন করা। তবে বিএনপির জোট গঠনে তাদের নেতা কে হবেন, এ নিয়ে নানামুখী আলোচনা চললেও বিএনপি নেতারা বলেছেন, দলের চেয়ারপারসনই (খালেদা জিয়া) হবেন তাদের ঐক্যের মূল নেতা। তবে এই ঐক্যে এখনই কোনো নির্বাচনী জোট হবে না।

তথ্যমতে, একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গণফোরামসহ কয়েকটি দল নিয়ে বিএনপি ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’ নামে যে জোট করেছিল, তা বহু আগেই ভেঙে গেছে। তখন ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্ব নিয়ে নানান কথা হয়েছিল। তারপর থেকে বিএনপি এককভাবেই তাদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছে। কিন্তু আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে পুরোনো দাবিতে ফের বিক্ষোভ-সমাবেশ করছে বিএনপি। তবে দলটি মনে করছে দাবি আদায়ে এককভাবে আওয়ামী লীগ সরকারকে চাপে ফেলা সম্ভব হবে না। সেজন্য নতুন কৌশল হিসেবে আওয়ামী লীগ বিরোধী অন্য সব দলের সাথে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে বিএনপি।সবকিছু বিবেচনা করে এবার ঐক্যের ক্ষেত্রে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বকেই সামনে রাখা হবে বলে জানিয়েছেন দলটির একাধিক নেতা।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলছেন, ২০ দলীয় জোট এখন কার্যকর না। ঐক্যফ্রন্টেরও একই অবস্থা। তাই আন্দোলনের জন্য বৃহত্তর ঐক্যের চেষ্টা করছি এবং প্রয়োজন হলে সেটাকে নতুনভাবে রুপ দেওয়া হবে।বিএনপির এই নেতা বলেন, ঐক্যের ক্ষেত্রে নেতৃত্ব নিয়ে কোনো জটিলতা হবে না। দলের নেতা খালেদা জিয়া আছেন। তার অনুপস্থিতিতে তারেক রহমানও আছেন।বিএনপির একাধিক নেতা বলছেন, তারা খালেদা জিয়ার নামেই ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করতে চাইছেন। সেখানে তারেক রহমান দলীয় নীতি নিয়ে তৎপর থাকবেন। এর ফলে খালেদা জিয়ার মামলার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক একটা অবস্থান তৈরি করা সম্ভব হতে পারে এবং একইসঙ্গে তাদের আন্দোলনে মানুষের সহানুভূতি পাওয়া যেতে পারে।

এ দিকে বুধবার (২ জুন) আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি সমমনা দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করছে। আন্দোলন ও নির্বাচন প্রশ্নে ঐক্য করতে চাইছে, সেটা ভালো কথা। তারা যদি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় আন্দোলন করে, রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করে তাহলে স্বাগত জানাই। কিন্তু এর অন্যথা হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।rtvonline