ডাকাত সন্দেহে র‍্যাব সদস্যদের গণপিটুনি: এলাকাজুড়ে আতঙ্ক, মার্কেট বন্ধ

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে গণপিটুনিতে ২ র‌্যাব সদস্যসহ ৩ জন আহত হওয়ার ঘটনায় স্থানীয় বারইয়ারহাট পৌর বাজার এলাকার ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। ঘটনাস্থলে ভানু মার্কেটের সবকটি দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। সেখানে মোতায়েন রয়েছে বিপুল সংখ্যক র‌্যাব ও পুলিশ সদস্য।

আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে সরেজমিন ঘটনাস্থলে গেলে দেখা যায়, পৌর বাজারের শান্তিরহাট সড়কের পাশে ভানু মার্কেটের সবকটি ফুল ও স্টেশনারি দোকান বন্ধ রয়েছে।

এসময় স্থানীয় জামালপুর গ্রামের একটি পরিবারের লোকজন তাদের এক সন্তানকে (ভানু মার্কেটের দোকানদার) খুঁজে পাচ্ছেন না বলে এ প্রতিবেদককে জানান। অবশ্য পরে মার্কেটের পাশের এক দোকানির কাছ থেকে জানা যায়, বুধবারের ঘটনা তদন্তে র‌্যাব-৭ এর ফেনী ক্যাম্পে বেশ কয়েকজন দোকানদারকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে বিষয়টি র‌্যাবের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়নি।

এদিকে, গতকাল বুধবারের ঘটনা সম্পর্কে বারইয়ারহাট পৌর এলাকার দোকানদার থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ কেউই সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে রাজি হননি। মূলত তাদের মধ্যে আতঙ্ক কাজ করছে।

মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুর হোসেন মামুন জানান, এ ঘটনায় র‌্যাবের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করা হয়নি। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এসব বিষয়ে কথা বলতে র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) নুরুল আবছারকে ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

প্রসঙ্গত, গতকাল বুধবার রাতে বারইয়ারহাট পৌর বাজার এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চট্টগ্রামমুখী লেনে একটি কাভার্ডভ্যানকে থামানোর চেষ্টা করেন সাদা পোশাকদারী র‌্যাব সদস্যরা। এসময় কাভার্ডভ্যানের চালক হঠাৎ ‘ডাকাত ডাকাত’ বলে চিৎকার করলে স্থানীয় জনতা দুই র‌্যাব সদস্য ও র‌্যাবের একজন সোর্সকে ডাকাত সন্দেহে গণপিটুনি দেন। রাতে গুরুতর আহত দুই র‌্যাব সদস্যকে ফেনী জেনারেল হাসপাতাল থেকে হেলিকপ্টারযোগে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নিয়ে ভর্তি করা হয়।

উৎসঃ kalerkantho