ঘুড়ে যেতে পারে মোড়> যে ৫ কারণে আশাবাদী হচ্ছে বিএনপি!

৫ কারণে আশাবাদী হচ্ছে বিএনপি-বিএনপি বলছে যে, সরকারের পতনের লক্ষ্যে তারা আন্দোলন করবে। আন্দোলন করার জন্য তারা বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সাথে মতবিনিময়ও করছে। বিএনপি নেতাদের বডি ল্যাঙ্গুয়েজে এখন অনেকটাই আশাবাদী মনোভাব দেখা যাচ্ছে। বিএনপি নেতারা সরকার পতনের আন্দোলন করবে

এমন হুমকিও দিচ্ছেন। রাজনীতিতে আওয়ামী লীগ এবং বিএনপির সেই পুরনো বাহাস আবার নতুন করে শুরু হয়েছে। বিএনপি নেতারা একদিকে যেমন নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবির কথা বলছে, অন্যদিকে সরকারের নানা ব্যর্থতায় বিভিন্ন রকম রাজনৈতিক কর্মসূচি গ্রহণ করা শুরু করেছে। বিএনপি

নেতাদের মধ্যে কিছুদিন আগেও যে হতাশা ছিলো সে হতাশাগুলো কাটতে শুরু করেছে। প্রশ্ন উঠেছে যে, কেন বিএনপি হঠাৎ করে আশাবাদী? বিএনপির বিভিন্ন নেতার সঙ্গে কথা বলে দেখা গেছে যে, তারা তারা মনে করছে যে, সরকারের অবস্থা অনেকটাই নাজুক এবং এখন আন্দোলন করার জন্য উপযুক্ত সময়। কেন

বিএনপি আশাবাদী হয়েছে, এই কারণ বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে মোটামুটি পাঁচটি কারণে বিএনপি নেতারা এখন আগের চেয়ে আশাবাদী। ১. সরকারের নানা ব্যর্থতা: ১৩ বছর বয়সী আওয়ামী লীগ সরকারের বিভিন্ন ব্যর্থতা এখন জনমনে আলোচিত হচ্ছে। বিশেষ করে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, বাজার থেকে ভোজ্যতেল উধাও হয়ে যাওয়া,

নানা ক্ষেত্রে অনিয়ম এবং ব্যর্থতা এখন জনগণের মধ্যে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে। ক’দিন আগে রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর কাণ্ড সারা দেশে জনগণের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া ফেলেছিল। একইভাবে জিনিসপত্রের দাম নিয়ে মানুষের মধ্যে এক ধরনের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা তৈরি হচ্ছে। এই পরিস্থিতিগুলো সরকার সঠিকভাবে মোকাবেলা করতে পারছে না বলেই অনেকে মনে করেন। এটি বিএনপিকে আশাবাদী করে তুলছে।

২. আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল: কিছুদিন ধরে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল বেশ প্রকাশ্য রূপে দেখা যাচ্ছে। বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগ নিজেরাই নিজেদের মধ্যে অন্তঃকলহে লিপ্ত হচ্ছে। এটাও বিএনপির জন্য ইতিবাচক বলে বিএনপির নেতারা মনে করছেন। তারা বলছেন যে, আওয়ামী লীগের যে সংগঠিত শক্তি সেই শক্তি এখন আর নেই এবং আওয়ামী লীগ বিরোধী আন্দোলন মোকাবেলা করার মতো ঐক্যবদ্ধ নয়।

৩. মার্কিন মনোভাব: বিএনপির আশাবাদী হওয়ার অন্যতম বড় কারণ হচ্ছে মার্কিন মনোভাব। একের পর এক বাংলাদেশের ওপর নানা বিষয়ে শর্ত এবং নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। আর এর মাধ্যমে মার্কিন মনোভাব নেতিবাচক সেটা সুস্পষ্ট হচ্ছে । সাধারণ মানুষও মনে করে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কটা এখন একটু শীতল। এটি এখন বিএনপির নেতারা তাদের জন্য ইতিবাচক বলে মনে করছে।

৪. জনগণের মধ্যে অস্বস্তি: জনগণের মধ্যে এখন নানা বিষয়ে অস্বস্তি এবং অনিশ্চয়তা তৈরি হচ্ছে। নিম্নআয়ের এবং মধ্য আয়ের মানুষ এক ধরনের টানাপোড়েনের মধ্যেই দিনযাপন করছে। অনেক বিষয়ে মানুষের মধ্যে অসন্তুষ্টি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। একদিকে জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি, অন্যদিকে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি এবং বিভিন্ন স্থানে সরকারি দলের নানা কর্মকাণ্ড মানুষের মধ্যে এক ধরনের নেতিবাচক ধারণা সৃষ্টি করছে।

এর ফলে বিএনপি মনে করছে যে, সরকারের জনপ্রিয়তা কিছুটা হলেও কমেছে। ৫. বিশ্ব পরিস্থিতি: রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের পর বিশ্ব পরিস্থিতিতে একটা নতুন মেরুকরণ হয়েছে। শ্রীলঙ্কা দেউলিয়া হয়েছে, সেখানকার মানুষ বিক্ষোভ করছে। পুরো টালমাটাল বিশ্ব পরিস্থিতির ঢেউ এখনো বাংলাদেশে এসে লাগেনি। কিন্তু বিএনপি নেতারা মনে করছেন এর প্রভাব বাংলাদেশের রাজনীতিতে পড়বে।

আর এসব কারণেই তারা আশাবাদী। কিন্তু শুধু নিজেদের শক্তিতে বলিয়ান না হয়ে পারিপার্শ্বিক ঘটনা দিয়ে বিএনপি কি সত্যিই সরকারের কোনো অস্বস্তির কারণ হতে পারবে?banglainsider