শ্রীলংকায় মন্ত্রী-এমপিদের বাড়িতে হামলা, সেনা পাহারায় প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ছাড়লেন রাজাপাকসে

শ্রীলংকায় মন্ত্রী-এমপিদের বাড়িতে হামলা সেনা-শ্রীলংকায় সরকার সমর্থকদের সঙ্গে সংঘর্ষের পর বিক্ষুব্ধ জনতা দেশটির শাসক রাজাপাকসে ও এমপিদের বেশ কয়েকটি বাড়িতে হামলার পর আগুন দিয়েছে। চলমান এ সহিংসতায় হতাহতের সংখ্যা পৌঁছেছে প্রায় ২০০ জনে। মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে বিবিসি জানায়, সোমবার শ্রীলংকার

প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসের পদত্যাগের পরই সহিংসতা শুরু হয়। সংবাদমাধ্যমটি বলছে, সোমবার থেকে চলা এ সহিংসতায় এখন পর্যন্ত পাঁচজন নিহত হয়েছেন। এছাড়া আহত হয়েছেন ১৯০ জনেরও বেশি মানুষ। এ পরিস্থিতিতে দেশটিতে চলমান কারফিউ বুধবার সকাল পর্যন্ত বাড়িয়েছে শ্রীলংকার কর্তৃপক্ষ।

এদিকে শ্রীলংকার সদ্য পদত্যাগী প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসের ভাই ও দেশটির প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসের পদত্যাগের দাবিতে এখনও বহু মানুষ বিক্ষোভ করছেন। নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন পণ্য ও দ্রব্যের ক্রমবর্ধমান দাম এবং বিদ্যুতের ঘাটতির কারণে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে দ্বীপরাষ্ট্রটিতে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ চলছে।

সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে জানায়, শ্রীলংকার বিক্ষোভকারীরা দেশটির শাসকদলের তিনজন সাবেক মন্ত্রী ও দুইজন এমপির বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। এছাড়া রাজাপাকসে পরিবারের পৈত্রিক বাড়িতেও আগুন লাগানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের পর প্রেসিডেন্টের অফিস ঘিরে বিক্ষোভ চলছে।

এদিকে শ্রীলংকার পুলিশ জানায়, ক্ষুব্ধ বিক্ষোভকারীরা সরকার সমর্থকদের ওপর হামলা এবং ক্ষমতাসীন দলের এমপিদের লক্ষ্য করে হামলা চালিয়ে পাল্টা জবাব দেয়। এছাড়া গাড়িতে হামলার পর দু’জন বিক্ষোভকারীকে গুলি করার পর আত্মহত্যা করেন শ্রীলংকার ক্ষমতাসীন দলের একজন এমপি।

সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, আগুন জ্বলতে থাকা বাড়িগুলোর সামনে লোকজন উল্লাস করছে। এছাড়া শ্রীলংকার সরকারি বাসভবনের কাছাকাছি এলাকায়ও আগুন লাগানো হয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ

অবশেষে সেনা পাহারায় সরকারি বাসভবন ছাড়তে হলো শ্রীলঙ্কার সদ্য বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসেকে।

একাধিকবার ক্ষমতায় থাকা মাহিন্দার এবারের বিদায়টা হয়েছে নিতান্তই লজ্জার। গণবিক্ষোভের মুখে শেষ পর্যন্ত তাকে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ছাড়তে হয়েছে সেনা পাহারায়। খবর এএফপির।

মঙ্গলবার কলম্বোয় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন ছাড়েন মাহিন্দা রাজাপাকসে। এর আগে কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী বাসভবনের মূল ফটক ভেঙে ভেতরে ঢুকে পড়েন।

তারা রাজধানীর ‘টেম্পল ট্রিজ’ বাসভবনের মূল দোতলা ভবনে হামলার চেষ্টা করেন। সেখানে প্রধানমন্ত্রী তার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আটকা পড়েন।

শীর্ষস্থানীয় এক নিরাপত্তা কর্মকর্তা জানান, মঙ্গলবার ভোরের আলো ফোটার আগে এক অভিযানে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও তার পরিবারের সদস্যদের নিরাপদে সরিয়ে নিয়েছে সেনাবাহিনী। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে কমপক্ষে ১০টি পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করা হয়েছিল।

মাহিন্দা রাজাপাকসেকে অজ্ঞাত স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। সোমবার দেশটিতে সহিংস বিক্ষোভে কমপক্ষে পাঁচজন নিহত হন। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে একজন আইনপ্রণেতাও রয়েছেন।

বিক্ষোভকারীদের কবলে পড়ে তিনি নিজ গুলিতে আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। এ বিক্ষোভে আহত হয়েছেন আরও প্রায় ২০০ জন।এর আগে হাম্মানতোতায় রাজাপক্ষের পৈতৃক বাড়িতেও আগুন দেওয়া হয়।