একপর্যায়ে চিৎকার করে ওঠেন নায়িকা পরীমনি! যা ঘটেছে…

ই সময়ের আলোচিত এক নায়িকার নাম পরীমনি। বিভিন্ন কারণে প্রায় বছরজুড়ে খবরের পাতায় উঠে এসেছিল তার না। এদিকে গতকাল ইফতেখার শুভর ‘মুখোশ’ মুক্তি পেয়েছে দেশের ৩৮টি প্রেক্ষাগৃহে। প্রথম দিনেই মোশাররফ করিম, পরীমনি, জিয়াউল রোশান অভিনীত ছবিটি দেখতে বিভিন্ন হলে দর্শকের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ করা গেছে। আগেই ছবির পাত্র-পাত্রী রোশান ও পরীমনি বলেছিলেন, শুক্রবার ছবি মুক্তির দিন তাঁরা ঢাকা ও আশপাশের কয়েকটি হলে যাবেন, দর্শকের সঙ্গে বসে সিনেমা দেখবেন। কথা রেখেছেন তাঁরা।

পরিচালক শুভ, পরীমনি, রোশানরা পরিকল্পনা করেছিলেন প্রথম দিন ঢাকার চারটি হলে যাবেন। যদিও মধুমিতা ও চিত্রামহলে যাওয়ার পর ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও শ্যামলী ও সনি সিনেপ্লেক্সে যাওয়া হলো না পরীমনির। কেন যেতে পারেননি? সেটা এতক্ষণে অনেক পাঠকই জেনেছেন। যাঁরা জানতে পারেননি তাঁরা না হয় একটু সবুর করুন।

শুক্রবার দুপুর ৩টার শোতে তাঁরা গিয়েছিলেন মতিঝিলের ‘মধুমিতা’ হলে। এ সময় করোনার কারণে মুখে যেমন পরেছিলেন ‘মুখোশ’ (ইংরেজি মাস্ক শব্দের অর্থ তো মুখোশই), সেই ‘মুখোশ’-এর ওপর লেখা ছিল ছবির নাম ‘মুখোশ’। পরীমনি যখন গাড়ি থেকে নামলেন তখন শোয়ের বিরতির ঠিক আগের সময়টা। তবু হলের সামনে পরের শো দেখতে আসা কিছু দর্শক ছিল।

তারা এসে পরীমনি ও মুখোশ টিমের সদস্যদের সঙ্গে সেলফি তুলল। এমন সময় পরীমনির পাশে ছিলেন স্বামী অভিনেতা শরিফুল রাজও। একটু পর হলে ঢুকে দর্শকদের চমকে দিলেন পরীমনি। যে নায়ক-নায়িকাকে পর্দায় দেখছিল দর্শক হঠাৎ পর্দার সেই নায়ক-নায়িকা সামনে হাজির হলে যা হওয়ার কথা ঠিক তা-ই হলো। তাঁদের দেখে হলভর্তি দর্শক চিৎকার করে উঠল। শিস বাজাতে লাগল কয়েকজন।

সবাইকে শান্ত করে পরীমনি কথা বললেন দর্শকের সঙ্গে। ছবি ভালো লাগলে যেন অন্যদের দেখতে বলেন, ভালো না লাগলেও যেন বলেন। সেলফি তোলার মহোৎসব শেষে পরীমনি গেলে পুরান ঢাকার চিত্রামহলে।

সেখানে গিয়ে অন্য ধরনের অভিজ্ঞতা হলো অভিনেত্রীর। ৩টার শো শেষে দর্শক হল থেকে বের হচ্ছে, অন্যদিকে নতুন শো শুরু হবে শিগগিরই। দুই শোয়ের দর্শকের দৃষ্টি চলে গেল ছবির নায়িকা পরীমনি, রোশানসহ অন্যদের দিকে। সবাই হৈহৈ করে ছুটে এলো নায়ক-নায়িকা দেখতে। মুহূর্তেই মানবস্রোতে ভেসে যাওয়ার উপক্রম হলো। পরী-রোশানরা দর্শকের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেছিলেন, পারছিলেন না। কিন্তু মানবস্রোত ডিঙিয়ে বের হতেও পারছিলেন না। একপর্যায়ে চিৎকার করে ওঠেন পরীমনি।

সন্তানসম্ভাবনা অভিনেত্রীকে রক্ষায় এগিয়ে এলেন ‘মুখোশ’ টিমের সদস্যরা। মুহূর্তে মানবপ্রাচীর তৈরি করেন তাঁরা। কোনো রকমে পায়ের জুতা জোড়া খুলে হাতে তুলে নিলেন পরী! দিলেন ভোঁ-দৌড়। এক দৌড়ে গিয়ে ওঠেন একটু দূরে পার্ক করা নীল রঙের গাড়িতে।

দর্শক-ভক্তরা এবার ছুটে গেল গাড়ির দিকে। পরীমনি-রোশানসহ অন্যদের অনেকক্ষণ আটকে রাখল তারা। এই সময়ের একটি ভিডিও ‘মুখোশ’ ছবির ফেসবুক পেজে পোস্ট করা হয়েছে, শিরোনাম ‘অল্পের জন্য রক্ষা’। ভিডিওটি শেয়ার করে পরীর অনেক শুভাকাঙ্ক্ষীই আঁতকে উঠেছেন। সন্তানসম্ভাবনা পরীর এভাবে মানবসমুদ্রের সামনে যাওয়া উচিত হয়নি, এমনটাই মত অনেকের।

তবে পরীমনি এসবকে বড় করে দেখতে চাইলেন না। বললেন, ‌‘এটাই তো মজা! নায়ক-নায়িকা হলে যাবে, দর্শক তাদের আটকে না রাখলে তারা কিসের নায়ক-নায়িকা! আমার তো খুব ভালো লেগেছে। সিনেমায় এমনটিই তো হওয়া উচিত। ’ তবে দুই হলের (মধুমিত ও চিত্রামহল) ধকল সামলে আর পরে দুই হলে যেতে পারলেন না পরীমনি। স্বামীর সঙ্গে ফিরলেন বাড়িতে। তবে আফসোস রয়েই গেল তাঁর।