নিপুনের সংবাদ সম্মেলন : গোপন স্ক্রিনশট ফাঁস, ফেঁসে যেতে পারেন জায়েদ খান!

শিল্পী সমিতির সদ্য সমাপ্ত নির্বাচনে জায়েদ খানের কাছে ১৩ ভোটে হারের পর ফলাফলে অসন্তোষ প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশনে আপিল করেছিলেন সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী চিত্রনায়িকা নিপুণ। তার আপিলের ভিত্তিতে ভোট পুনর্গণনাতেও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে জায়েদ খানকে।

এ নিয়ে রোববার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে কাঞ্চন-নিপুণ পরিষদের নির্বাচন পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে বিস্ফোরক অভিযোগ তুলেছেন নিপুণ।

তবে কেবল মৌখিক অভিযোগ নয়, জায়েদ খানের বিরুদ্ধে কিছু প্রমাণও তুলে ধরেন নিপুণ। নির্বাচনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট উচ্চ পর্যায়ের এক ব্যক্তির সঙ্গে জায়েদের মেসেজিংয়ের স্ক্রিনশট পর্যন্ত দেখিয়েছেন তিনি। যেখানে দেখা গেছে, নির্বাচনে নানা অপকৌশল অবলম্বন করেছেন জায়েদ।

এর আগে ভোট চলাকালীনও নির্বাচনের দিন জায়েদ খানের বিরুদ্ধে চাদরের নিচ দিয়ে টাকা দিয়ে ভোট কেনার অভিযোগ তুলেছিলেন নিপুণ। সংবাদ সম্মেলনে সেই প্রমাণও হাজির করেছেন নিপুণ। সংবাদ সম্মেলনে একটি ভিডিও দেখিয়েছেন নিপুণ। নিপুণের দাবি ভিডিওটি নির্বাচনের দিন ধারণ করা। ওই ভিডিওতে জায়েদ খানকে এক তরুণীর হাতে কাগজের সঙ্গে কিছু একটা গুঁজে দিতে দেখা গেছে। ওই তরুণীর হাতে কাগজ দেওয়ার ছলে জায়েদ খান টাকা দিয়েছেন বলে অভিযোগ তোলেন নিপুণ।

সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন কমিশনার জায়েদ খানের চক্র উল্লেখ করে তিনি বলেন, পীরজাদা হারুণ আপনার কী স্বার্থ ছিল, কেন এমন করলেন আমাদের সঙ্গে? ভোটারদের টাকা দেওয়ার বিষয়ে আপনার কাছে অভিযোগ করেছি, কিন্তু আপনি পদক্ষেপ নেননি। নিয়ম কারুণ কি কাঞ্চন নিপুন-প্যানেলের জন্য ছিল? নির্বাচন কমিশনার একটি চক্র, এটা জায়েদ খানের চক্র।

নিপুণ আরও বলেন, তার সঙ্গে ছিল এফডিসির এমডিও। তারা তিনজন মিলে আমাদের বিরুদ্ধে কাজ করেছে। আমার মনে হয় এ বিষয়ে তদন্ত করা উচিত।

এদিকে, নিপুণের তোলা অভিযোগ ও উপস্থাপণ করা প্রমাণ সত্যি হলে জায়েদ খান ফেঁসে যেতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে।

অবশ্য নিপুণ ফের সমিতির নির্বাচন চাইছেন না। পুনরায় সমিতির নির্বাচন চাইছেন কী না, সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে নিপুণ বলেন, ‘না, আমাদের আপত্তি কেবল একটি পদ নিয়ে। আর কোনো পদ নিয়ে আমাদের সমস্যা নেই। আমি জায়েদ খানের সঙ্গে পুনরায় নির্বাচন করতে চাই।’সূত্র: যুগান্তর