বাংলাদেশের পুরুষদের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন বাধন

আগামী ১২ নভেম্বর দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’। এরই মধ্যে সিনেমাটির মুক্তির সংবাদ সাড়া ফেলেছে সারা দেশে।

কান চলচ্চিত্র উৎসবে প্ৰতিযোগিতা বিভাগে প্রথমবারের মতো নির্বাচিত বাংলাদেশি সিনেমা হওয়ায় ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে দেখার আগ্রহ অনেক সিনেমাপ্রেমীর।

রেহানা মরিয়ম নূর, এই নামটার আড়ালে যে মানুষটার ছবি সহজে দৃশ্যমাণ হয় তিনি আজমেরি হক বাঁধন।এই অভিনেত্রীর এখন বলার মতো অনেক গল্প, কিংবা তাকে নিয়েই এখন অনেক গল্প।

গল্পের বাইরে আবার উপস্থিত হয় নানা গসিপও। তার সাফল্যের পেছনে রয়েছে হাসি, কান্না, আনন্দ-বেদনা। দেশের প্রেক্ষাগৃহে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ মুক্তি উপলক্ষ্যে সম্প্রতি আয়োজিত এক আড্ডায় বাঁধনের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, তিনি প্রেম কিংবা বিয়ের প্রস্তাব পাচ্ছেন কী না?

একগাল হেসে বাঁধনের উত্তর, ‘আমি যে মানসিক অবস্থায় আছি, সেখান থেকে আমার জন্য এটা কঠিন। আমাকে নিতে পারাও আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে দেশের পুরুষদের জন্য কঠিন হবে।’

বাঁধনের এমন উত্তরে প্রথমেই যে প্রশ্নটি মাথায় আসে, তাহলে কি দেশের বাইরের কাউকে বিয়ে করবেন? বাঁধনের ভাষ্য, ‘এখন আমি কাজে ফোকাস করতে চাই।

আমার মনে হয়, আমি জীবনই শুরু করেছি মাত্র চার বছর হলো। ৩৪ বছর বয়স থেকে জীবনটা শুরু হয়েছে, এখন আমার ৩৮।’

এর আগে সাক্ষাৎকারে বাঁধন তার ব্যক্তিগত জীবন প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, ‘আমি আর আমার মেয়ে ভালো আছি। আর আপনি তো জানেন যে আমার বাবা-মায়ের বাসায় থাকি আমি।

আমার বাবা-মা দুজনেই ভালো আছেন। এইতো এভাবেই চলছে। এখন আসলে নিজের উপরে ফোকাস করছি। নিজেকে ভালোবাসার চেষ্টা করছি। নিজের ব্যাপারে যত্ন নেওয়ারও চেষ্টা করছি।

এটাই এখন বেশি কাজে দিচ্ছে। নিজেকে সময় দিতে চাচ্ছি। এইতো জীবন।’ প্রসঙ্গত, নেটফ্লিক্সের প্রযোজনায় অ্যাকশন-ড্রামা ‘খুফিয়া’ সিনেমার সাত দিনের শুট করে দেশে ফিরেছেন বাঁধন।

একটি গুরুত্বপুর্ণ চরিত্রে রুপদান করতে ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়েছেন তিনি। বলিউডের খ্যাতিমান পরিচালক বিশাল ভরদ্বাজের সিনেমাটিতে এখনও তিন দিনের শুট বাকি এই অভিনেত্রীর। আগামী ফেব্রুয়ারিতে মুম্বাইয়ে বাকি অংশের দৃশ্যধারণ করা হবে।