নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে কোহলিদের শোচনীয় হারকে যেভাবে দেখছে ভারতের গণমাধ্যম

পাকিস্তানের পর নিউজিল্যান্ডের কাছেও পাত্তা পেল না ভারত। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের কাছে ১০ উইকেটে পরাজয়ের পর কিউইদের কাছে কোহলিরা হারল ৮ উইকেটে।গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচে দুই ইনিংসেই আধিপত্য বিস্তার করেছে নিউজিল্যান্ড। টসে জিতে ব্যাটিংয়ে আমন্ত্রণ জানিয়ে ভারতকে নাস্তানাবুদ করে ছেড়েছে কিউই বোলাররা।

শুরুটা ঈশান কিষাণকে দিয়ে। দলীয় সংগ্রহ ৫০ রান পার হওয়ার আগেই টপঅর্ডারের ৪ উইকেট হাওয়া। এক সময় মনে হচ্ছিল দলগতভাবে ১০০ রানই ছুঁতে পারবে না ভারত।কিন্তু শেষ দিকে জাদেজার ১৯ বলে ২৬ রানের ইনিংসের কারণে সেই সম্মানটা রক্ষা হয়। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১১০ রান তুলে ম্যান ইন ব্লুরা।

১১১ রানের মামুলি লক্ষ্য ২ উইকেট হারিয়ে ৩৩ বল বাকি থাকতেই পূরণ করে ফেলে নিউজিল্যান্ড।ভারতের এই শোচনীয় পরাজয় মেনে নিতে পারছেন দেশটির সমর্থকরা। দেশটির গণমাধ্যমগুলো যেন হতাশা ব্যক্ত করছে তাদের লেখনীর মাধ্যমে।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ভারতে এই হারকে পাকিস্তান ম্যাচের পুনঃসম্প্রচার বলে আখ্যায়িত করেছে কলকাতার জনপ্রিয় গণমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকা।
এ হারের পর ভারতের টি২০ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে যাওয়ার আশা কার্যত শেষ বলে মনে করছে গণমাধ্যমটির ক্রীড়াসাংবাদিকরা।

কোহলির একটি বিষাদগ্রস্ত মুখের ছবি দিয়ে ক্যাপশনে তারা লিখেছে, ‘কোহলিদের সেমিফাইনালের আশা প্রায় শেষ।’

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হারের পর নিজেদের প্রথম প্রতিবেদনে আনন্দবাজার পত্রিকা শিরোনাম করেছে – ‘এই রবিতেও অস্তাচলে, ১০-এর পর ৮ উইকেটে হারের লজ্জা, কোহলিদের বিশ্বকাপ ভবিষ্যৎ সঙ্কটে’।

ম্যাচ চলাকালীন ভারতীয় ব্যাটারদের ব্যর্থতা নিয়েও কটাক্ষ কর প্রতিবেদন লিখেছে পত্রিকাটি। তারা লিখেছে – ‘১২ ওভার বাউন্ডারি নেই! দীপাবলির আগে ভোজবাজির মতো উবে গেল কোহলি, পন্থদের চার-ছক্কা।’

ভারতের এই পরাজয়ে কোহলিরা লজ্জার রেকর্ড গড়েছেন বলে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে হিন্দুস্তান টাইমসের বাংলা সংস্করণ।

পাকিস্তানের বিপক্ষে হারের প্রসঙ্গ টেনে এসে তারা শিরোনাম করছে – ‘৭৯-র পর ১১০, ফের কিউইদের বিরুদ্ধে লজ্জার রেকর্ড ভারতের’। কিউইদের বিপক্ষে ভারতের ব্যাটাররা পরাস্ত হন বলে জানানো হয়েছে প্রতিবেদনে।

তারা তথ্য দিয়েছে, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতীয় ব্যাটারদের সবচেয়ে বড় কাঁটা নিউজিল্যান্ডই। কিউই বিপক্ষে এবার দ্বিতীয় সর্বনিম্ন রান করলেন বিরাট কোহলিরা। এর আগে সর্বনিম্ন রান ছিল নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেই। ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৭৯ রান করেছিল ভারত। এবার তারা থামল ১১০ রানে।

অন্য একটি প্রতিবেদনে ভারতীয় ব্যাটারদের ব্যাটিংকে ‘জঘন্য ব্যাটিং’ বলে উল্লেখ করেছে গণমাধ্যমটি। সেখানে তারা লিখেছে – ‘মরণ-বাঁচান ম্যাচ ছিল। কিন্তু সেই ম্যাচে ‘বাঁচার’ ন্যূনতম সুযোগও তৈরি করতে পারেনি ভারত।’

পশ্চিমবঙ্গের আরেক গণমাধ্যম জি-নিউজ এই পরাজয়ে বিশ্বকাপে কার্যত ভারতের বিদায় বলে মনে করছে। পাকিস্তান ম্যাচ পুনরাবৃত্তি ঘটেছে বলে জানিয়েছে তারাও।

আইপিএলের পারফরমাররা কেন বিশ্বকাপ মঞ্চে পারছেন না সে প্রশ্ন তুলেছে গণমাধ্যমটি।তারা শিরোনাম করেছে – ‘বিশ্বকাপে কার্যত বিদায় ভারতের, IPL-র মাতব্বররা দেশের জার্সিতে ফিকে’। যুগান্তর