ভাঙা পায়ে খেলা দেখালেন মমতা: পশ্চিমবঙ্গে ফের বিপুল ব্যবধানে জয় পেল মমতার তৃণমূল

পশ্চিমবঙ্গে ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে মমতা ব্যানার্জির নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছে। চূড়ান্ত ফলাফল সরকারিভাবে ঘোষণা না আসলেও এখন সময়ের ব্যাপার ঘোষণা করার।

রোববার বেসরকারি ফলাফলে ২৯২ আসনের মধ্যে তৃণমূল পেয়েছে ১৯০ আসন। আর ৯৫টি আসনে বিজেপি জয় লাভ করেছে। আনন্দবাজার পত্রিকার খবর অনুযায়ী, বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত প্রাপ্ত ফলাফলে ১৯০টি আসনে এগিয়ে তৃণমূল। অন্যদিকে বিজেপি এগিয়ে রয়েছে ৯৫টি আসনে।

বাম-কংগ্রেস এবং ইন্ডিয়ান সেক্যুলার ফ্রন্টের সংযুক্ত মোর্চা এগিয়ে রয়েছে ৫টি আসনে।

বলেছিলেন ভাঙা পায়ে খেলা হবে। খেলই দেখাচ্ছেন মমতা ব্যানার্জি। সারা পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে যখন ঘাসফুলের সুনামি নন্দীগ্রামেও কট্টর টক্কর দিচ্ছেন তৃণমূল নেত্রী। বড় ব্যবধানে এগিয়ে থেকেও আপাতত পিছিয়ে শুভেন্দু অধিকারী। এই মুহূর্তে নন্দীগ্রামে ১৫ রাউন্ড গণনার শেষে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এগিয়ে রয়েছেন ১৯০০ ভোটে। ভোটগণনা শেষ হতে বাকি আর মাত্র তিন রাউন্ড।

নন্দীগ্রামে ১২ রাউন্ড গণনার শেষে ৪৬০০ ভোটে এগিয়ে গিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ১১ রাউন্ড থেকেই ক্রমেই ব্যবধান বাড়াচ্ছিলেন তৃণমূলনেত্রী। যদিও বিনা যুদ্ধে এক ইঞ্চিও জমি ছাড়েননি তারই এক সময়ের প্রধান সেনাপতি শুভেন্দু অধিকারী।

নন্দীগ্রামকে বাদ দিলে, গোটা রাজ্যেই তৃণমূলের ঝড় দেখা যাচ্ছে। তৃণমূল বলছে, বাংলা নিজের মেয়েকে চায় এই স্লোগানকে প্রমাণ করা এখন কেবল সময়ের অপেক্ষা। এমনকি গত লোকসভা নির্বাচনে পিছিয়ে থাকা জেলা মালদহ, ঝাড়গ্রাম, নদিয়া জেলাতেও তৃণমূলের প্রার্থীদের ফল অভাবনীয়। জয় এসেছে মুর্শিদাবাদেও।

২০২১ নির্বাচনে বিজেপির টার্গেট ছিল এবার পূর্ব-মেদিনীপুর, বলা হচ্ছিল শুভেন্দু অধিকারীর গড় এই এলাকা। তাঁকেই পোস্টার বয় বানিয়ে লড়াইয়ে নেমেছিল বিজেপি। কিন্তু ভোটের দিন বেলা গড়াতে দেখা যাচ্ছে ব্র্যান্ড মমতার সামনে দাঁড়াতেই পারছে না বিজেপি।

শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দিয়েই নন্দীগ্রাম প্রসঙ্গে বলেছিল মাননীয়াকে হাফ লাখ ভোটে হারাব।আর মমতা বলেছিলেন, ভাঙা পায়েই খেলা দেখাবেন। ভোটের ফল যতই এগোচ্ছে ততই প্রকট হচ্ছে তৃণমূলের খেলা। তৃণমূল নেত্রীর করিশ্মাতেই গোটা রাজ্যে বাজিমাত মানছে সবাই।

এ দিন নন্দীগ্রামের প্রথম দফার গণনা শেষে সামান্য হলেও পিছিয়ে পড়ে তৃণমূল। প্রথম রাউন্ড ভোটের শেষে তৃণমূলের প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পেয়েছিলেন ৫৭৯০ টি ভোট। বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী পান ৭২৮৭টি ভোট। বলাই বাহুল্য গোটা ভারতের নজরই রয়েছে এই নন্দীগ্রাম কেন্দ্রটিতে। শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পরই নন্দীগ্রামে হাতিয়ার করেছিলেন মেরুকরণের রাজনীতিকে।

অন্য দিকে গোটা রাজ্যে দুই তৃতীয়াংশ আসনে জয়ের বিষয়ে মমতা আত্মবিশ্বাসী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাস করেছিলেন মহিলা ভোট এবং তার উন্নয়নমূলক কাজকেই। এদিন তৃণমূল প্রথম থেকেই বলছিল প্রথম রাউন্ডের ফলে অবশ্য কিছুই বলা যায় না। উল্টে যেতে পারে যেকোনো সমীকরণ, সেই ফলই ফলতে শুরু করেছে এবার।

খেলা কেমন হলো: কথা দিয়েছিলেন ২ মে দুপুরে লাইভে এসে সব প্রশ্নের জবাব দেবেন তিনি। কথা রেখেছেন দেবাংশু। লাইভে এসেছেন, এই প্রথমবার নিজের মায়ের সঙ্গে আলাপ করিয়ে দিয়েছেন সকলের সঙ্গে। বর্তমানে BJP-কে পিছনে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছে তৃণমূল। জয়ের আগাম আভাস পেয়ে লাইভে কেঁদে ফেললেন এই যুব তৃণমূল নেতা। কান্না জড়ানো গলায় জানালেন, ‘খেলাটা কেমন হল! ভালো লাগল তো!’

এদিন দেবাংশু বলেন, ‘অনেক ব্যক্তিগত আক্রমণ সহ্য করেছি…’। কথা বলতে বলতে কেঁদে ফেলেন দেবাংশু। কান্না জড়ানো গলায় বলেন, ‘ আমার মা, বাবা, দিদি টেনশনে বাইরে বার হতে পারত না। ছেলে রাজনীতি করে। যদি কিছু একটা হয়ে যায়। আজ বেইমানরা জিতছে না। খেলা হয়েছে।’ এই প্রথম ফেসবুক লাইভে নিজের মায়ের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন দেবাংশু। তিনি বলেন, ‘এতদিন আমার মায়ের ছবি দেখাতাম। আজকের দিন সময়টা মাথায় রাখুন, দুপুর ১২টা ১৯ মিনিট- আমার মায়ের সঙ্গে আলাপ করাচ্ছি।’