পুলিশের হাত থেকে ছাড়া পেয়ে যা বললেন ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম

রাজধানীর মতিঝিল শাপলাচত্বর এলাকা থেকে বিক্ষোভের সময় আটক ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলামকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় যুগান্তরকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পল্টন থানার ডিউটি অফিসার কাজী আশরাফুল হক।

এর আগে সকালে মতিঝিল এলাকায় বিক্ষোভে পুলিশের সঙ্গে যুব অধিকার পরিষদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। ওই সময় পুলিশ বিক্ষোভে অংশ নেওয়া রফিকুল ইসলাম ওরফে ‘শিশুবক্তাকে’ আটক করে।

এদিকে ইসলামী আন্দোলনের নেতা মো. আবদুস সালাম ফেসবুকে তার মুক্তির বিষয়টি জানিয়েছেন। তার ফেসবুক পেজ থেকে ‘শিশুবক্তার’ মুক্তির বিষয়টি জানিয়ে লাইভ দেওয়া হয়েছে।

দুই মিনিটের ওই ভিডিওতে ‘শিশুবক্তাকে’ একটি মাইক্রোবাসে দেখা যায়। এর আগে বেলা ১১ টার দিকে মতিঝিলে যুব অধিকার পরিষদ আয়োজিত বিক্ষোভে পুলিশ পেছন থেকে অতর্কিত হামলা চালায় বলে অভিযোগ ছাত্র অধিকার পরিষদ নেতা মশিউর রহমানের।

তিনি জানান, পুলিশ মিছিলে লাঠিচার্জ, ক্যাদানে গ্যাস নিক্ষেপ ও ফাঁকা গুলি ছুঁড়েছে। এ সময় বিক্ষোভে অংশ নেওয়া প্রায় অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। সেখান থেকেই রফিকুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে।

ছাড়া পাওয়ার পর ফেসবুক লাইভে এসে কথা বলেছেন তিনি। ফেসবুক লাইভে রফিকুল ইসলাম মাদানী বলেন, আমি আপনাদের সামনে এসেছি এটা জানানোর জন্য যে আমি এখন সম্পূর্ণ মুক্ত। মতিঝিল… পল্টন থানায় কিছুক্ষণ ছিলাম। আমি সব বিষয়ে ইনশাল্লাহ পরে কথা বলব। খুব টায়ার্ড, টায়ার্ড আছি। আল্লাহকে সাক্ষী রেখে বলব, আমি কাউকে দেখানোর জন্য যাইনি।