অজানা শঙ্কায় আওয়ামী লীগ

অজানা শঙ্কায় আওয়ামী লীগ-টানা ১২ বছরের বেশি সময় ক্ষ’মতায় আছে আওয়ামী লীগ কিন্তু এখন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বললে দেখা যায় তারা নানা রকম অস্বস্তি ও অজানা আ’শঙ্কায় ভুগছেন। যদিও রাজনৈতিক অঙ্গনে আওয়ামী লীগের বি’রুদ্ধে বড় র’কমের

চাপ নেই বা সরকার বিরোধী কোনো বড় রকমের আন্দোলনের সম্ভাবনাও নেই। সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপি বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে রাজপথ গরম করার চেষ্টা করছে কিন্তু সেই কর্মসূচিতে জনগণের কোনো রকম সম্পৃক্ততা খুঁজে পাওয়া যায় না। বিএনপির নেতাকর্মীরা কিছু সভা-সমাবেশের

মাধ্যমে নিজেদের অস্তিত্ব জানান দেয় মাত্র। অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলো সরকার বিরোধী বড় কোনো কার্যক্রম করার সম্ভাবনা নেই কিন্তু তার পরেও আওয়ামী লীগ কেন অজানা শ’ঙ্কায় ভুগছে?। অনেকগুলো বিষয় নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে শ’ঙ্কা দেখা দিয়েছে।

১. আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মনে করছেন যে সরকার পরিচালনায় দলের গুরুত্ব কমে গেছে সরকার চালাচ্ছে আমলারা এবং কিছু আমলাদের পরামর্শেই সবকিছু হচ্ছে। ফলে আওয়ামী লীগ সরকার রাজনৈতিকভাবে ক্ষমতায় আছে কি না এটা নিয়ে অনেক নেতার মধ্যে সংশয় দেখা দিচ্ছে।

২. আওয়ামী লীগ প্রশাসনসহ বিভিন্ন স্থানে জামায়াত-শিবির এবং বিএনপির লোকজন মাথাচাড়া দিচ্ছে এবং তারা নব্য আওয়ামী লীগার সেজে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদগুলো দখল করছে। আওয়ামী লীগের নেতারা এদেরকে চেনেন কিন্তু তাদের বি’রুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারছেন না।

৩. প্রতিটি জেলায় আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল তীব্র আকার ধারণ করছে এবং অনেক ক্ষেত্রে প্রকাশ্য রূপ নিচ্ছে। অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে দলের অনেক ক্ষতি হচ্ছে বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের অনেক নেতা।

৪. আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীদের ক্ষমতার দাপট বেড়েছে। আর এই অনুপ্রবেশকারীরাই এখন আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বড় মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তারা যেকোনো সময় দলের স্বার্থ হানিকর কার্যক্রম করতে পারে। যার ফলে সার্বিকভাবে দলের বদনাম হচ্ছে।

৫. আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্র’মশ একা হয়ে যাচ্ছেন। তাকে পরামর্শ দেয়া, বিভিন্ন বিষয়ে সঠিক তথ্য দেয়ার লোকের সংখ্যাও কমে যাচ্ছে বলে আওয়ামী লীগের অনেকে মনে করছে। আর এসব কারণে এক অজানা আশঙ্কা তৈরি হয়েছে আওয়ামী লীগের মধ্যে।

banglainsider