শীতে নিয়মিত গোসল ডেকে আ’নতে পারে বি’পদ!

গোসল ডেকে আ’নতে পারে বি’পদ-অনেকেই শী’তকালে নি’য়মিত গো’সল করেন না বা ক’রলেও গরম পানি ব্যবহার করে থাকেন। তবে নি’য়মিত গোসল না করার ব্যাপারটা আমরা কেউই সহজভাবে নিতে পারি না। তবে এই ধারণা ভু’ল প্র’মাণিত করে নি’য়মিত গো’সল না

করাকেই স্বাস্থ্যের জন্য ভালো বললেন গবেষকরা। অ’বাক লাগছে? তাই না। কিন্তু এটাই সত্যি। চ’র্মরোগ গ’বেষকরা বলছেন, নি’য়মিত গো’সল নয় বরং নি’য়মিত গোসল না করাই ভালো। সারা পৃথিবী জুড়েই এ ব্যাপারে একমত চিকিৎসকরা। প্রতিদিন গো’সল করলে ত্বকের

বেশ ক্ষ’তি হতে পারে। আর তাই প্রতিদিন গো’সলের বি’রুদ্ধেই মত তাদের। শীতকালের সকালও তার ব্যতিক্রম নয়। মূলত শ’রীর ময়লা যেন না হয় সেজন্যই আমরা গোসল করে থাকি। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শরীরের ময়লার সঙ্গে গো’সলের কোনো সম্পর্ক নেই। বোস্টনের

এক চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ বলেন, প্রতিদিন গোসল করাটা অনেকটাই সামাজিক নিয়ম। এর সঙ্গে ময়লার কোনো সম্পর্ক নেই। কেননা শরীরের নিজস্ব ক্রিয়াই ত্বককে ময়লা হওয়ার হাত থেকে বাঁচায়। সেটা গোসল করলেও হয়, না করলেও হয়। সুতরাং ময়লা তাড়াতে গোসলের দাওয়াই

ততটা কা’র্যকরী নয়। অবশ্যই একেবারে গো’সল না করার প’ক্ষে যুক্তি দেখাননি তিনি। প্রতিদিন গোসল না করার পক্ষে আরও একটি যু’ক্তি দেখাচ্ছেন বি’শেষজ্ঞরা। সেটি হল ব্যাকটেরিয়ার ধ্বংস হওয়া। শরীর তার নিজের দরকারে কিছু ভাল ব্যা’কটেরিয়ার জন্ম দেয়। যা টক্সিনের হাত থেকে ত্বক’কে বাঁচায়। কিন্তু প্রতিদিন গোস’লের ফলে সেগুলোর মৃ’’ত্যু হয়।

তাতে ক্ষ’তি হয় শরীরেরই। এছাড়া ন’খেরও ক্ষ’তি হয়। কেননা গোসল করার সময় নখ পানি শোষণ করে। যা ধীরে ধীরে ন’খকে ন’ষ্টের দিকে ঠেলে দেয়। তাহলে শীতে গো’সল নিয়ে যারা ভীত ছিলেন তারা এবার বেরিয়ে আসুন। আর নি’য়মিত গোসল করা নিয়ে ভ’য় পা’ওয়ার কিছু নেই।