অবশষে লুৎফুজ্জামান বাবরের মামলা নিষ্পত্তি নিয়ে নতুন করে যে নির্দেশ দিয়েছে আদালত

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলার বিচারিক আদালত পরিবর্তনের আবেদন খারিজ করে আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে বিচারিক আদালতকে আদেশ পাওয়ার সময় থেকে ৩০ দিনের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তি করার নির্দেশ দিয়েছেন।

বুধবার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে দুদকের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মাহজাবিন রাব্বানী দীপা। আবেদনকারীর পক্ষে ছিলেন আইনজীবী পারভেজ হোসেন।

এর আগে ৭ কোটি ৫ লাখ ৯১ হাজার ৮৯৬ টাকা জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও সম্পদের হিসাব বিরণীতে তথ্য গোপনের অভিযোগে ২০০৮ সালের ১৩ জানুয়ারি লুৎফুজ্জামান বাবরের বিরুদ্ধে রমনা থানায় মামলা করে দুদক। এরপর দুদকের উপ-পরিচালক রুপক কুমার সাহা তদন্ত শেষ করে ওই বছরের ১৬ জুলাই অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

মামলাটি ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭-এ সাক্ষী শেষে চলতি বছরের ১ মার্চ ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৪২ ধারায় পরীক্ষা করা হয়। আসামিপক্ষের আরজি সাফাই সাক্ষী দেবেন না, তবে লিখিত বক্তব্য দেবেন বলে সময় নেন। লিখিত বক্তব্য না দিয়ে এভাবে পরপর তিনবার সময় নেন তারা।

এরপর লুৎফুজ্জামান বাবরের পক্ষে আদালত পরিবর্তনের আবেদন করা হয়। হাইকোর্ট বুধবার আবেদনটি সরাসরি খারিজ করেন এবং আদেশ হাতে পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তি করার নির্দেশ দেন।

উল্লেখ্য, নিম্ন আদালতে বুধবার মামলাটির শুনানির জন্য ধার্য ছিল। পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ১৫ নভেম্বর দিন ধার্য করা হয়েছে।

যুগান্তর