ধরা পড়লো বশেমুরবিপ্রবির কম্পিউটার চোরেরা, কম্পিউটার গুলো কী হলো?

গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চু’রি হওয়া ৪৯টি ক’ম্পিউটারের মধ্যে ৩৪টি ক’ম্পিউটার উ’দ্ধার করেছে গো’পালগঞ্জ সদর থানা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) রাতে রাজধানী ঢাকার মহাখালী আমতলী এলাকার ক্রিস্টাল আবাসিক হোটেলে অভিযান চালিয়ে চু’রি হওয়া এসব কম্পিউটার উ’দ্ধারসহ ২ জনকে আ’টক করে পুলিশ।

গোপালগঞ্জ সদর থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক ও মামলার ত’দন্তকারী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান জানান, পবিত্র ঈদুল আজহার দীর্ঘ ছুটির মধ্যে গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের একুশে ফেব্রুয়ারি গ্রন্থগার লাইব্রেরী থেকে ৪৯টি কম্পিউটার ‘চু’রির ঘ’টনা ঘ’টে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. নুর উদ্দিন আহম্মেদ বাদি হয়ে গোপালগঞ্জ সদর থানায় গত ১০ আগস্ট একটি মা’মলা করেন।

পরবর্তীতে প্র’যুক্তির সহায়তায় ও গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকার বনানী থানার সহযোগিতায় আমরা মহাখালী আমতলী এলাকার ক্রি’স্টাল আবাসিক হোটেলের ৪০৪ নং কক্ষে অ’ভিযান চালিয়ে ৩৪টি কম্পিউটার ও ৪০টি কম্পিউটার রাখার স্ট্যান্ড উ’দ্ধার করা হয়। এ সময় হোটেলের এক মালিক দুলাল ও হোটেল বয় হুমায়ুন কবিরকে আ’টক করা হয়।

হোটেল মালিক দুলাল প্রাথমিক জি’জ্ঞাসাবাদে জানায় সে ক’ম্পিউটার গুলো ওই হোটেলের অপর মালিক গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার গোপিনাথপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি পলাশ শরীফের কাছ থেকে ক্রয় করেছে।

বিদ্যালয়ের রে’জিস্ট্রার ড. নুর উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের যে ৪৯টি কম্পিউটার চু’রি হয়েছে তার মধ্যে ৩৪টি কম্পিউটার উ’দ্ধার হয়েছে। এটা আমারা গ’ণমাধ্যমের মাধ্যমে জেনেছি তবে এখনও অ’ফিসিয়াল ভাবে জানতে পারিনি। এ ঘ’টনায় পুলিশের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন গঠিত ৭ সদস্যের একটি ত’দন্ত কমিটিও কাজ করছে।

এর আগে এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আরও কম্পিউটার চু’রির ঘ’টনা ঘ’টে। ২০১৭ সালে ৫০টি, ২০১৮ সালে ৪৭টি কম্পিউটার চু’রি হয়।