ভালোবেসে বিকেলে বিয়ে, রাতে আত্মহত্যা নবদম্পতির নাকি হত্যাকান্ড:তদন্তে নেমেছে পুলিশ

ভালোবাসায় মানুষ অন্ধ হয়ে যায়। অনেক পিতা মাতা সন্তানদের ভালোবাসাকে সমর্থন করেন না। যে কারণে অনেকেই ঘটিয়ে ফেলে অপ্রত্যাশিত ঘটনা।সাম্প্রতিক সময়ে এমনি এক ঘটনাকে কেন্দ্র করে যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ আলোড়ন সৃ্ষ্টি হয়েছে। গত সোমবার ২১ মার্চ ( March ) মাঝিহাট ইউনিয়ানের ( Majhihat Union ) দমগড়া কারিগর পাড়া ও মাসিমপুর চালুঞ্জা তালুকদার ( Masimpur Chalunja Talukdar ) পাড়ার এক যুবক ও যুবতি নিজেদের ভালোবাসাকে স্বামী- স্ত্রীর সম্পর্কে রূপান্তরিত করেন। তবে তাদের সম্পর্ক মেয়ের পরিবার মেনে নিয়ে না।

নববিবাহিত সবুজ (২১) দামগড়া কারিগর পাড়া গ্রামের মৃত জলিলের ছেলে এবং তার নববিবাহিত স্ত্রী মার্জিয়া জান্নাত (১৮) মাসিমপুর চালুঞ্জা তালুকদার ( Masimpur Chalunja Talukdar ) পাড়া গ্রামের রাজ্জাকের ( Razzak ) মেয়ে। দরিদ্র পরিবারের ছেলে সবুজ পেশায় শ্রমিক। আর মারজিয়া জান্নাত ( Paradise ) অবস্থা সম্পন্ন ঘরের সন্তান। সে নামুজা ডিগ্রি কলেজের ( Namuja Degree College ) এইচএসসির ছাত্র।

পুলিশ ( police ) জানায়, সবুজ ও জান্নাতের মধ্যে এক বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি জানাজানি হলে সোমবার (২১ মার্চ) ( March ) বিকেলে দুজনে কাজীর কার্যালয়ে গিয়ে গোপনে বিয়ে করেন। বিয়ের পর স্ত্রীকে নিয়ে নিজ বাড়িতে আসেন সবুজ। সবুজের আর্থিক অবস্থা খারাপ হওয়ায় মেয়ের পরিবার সম্পর্ক মেনে নেয়নি। সন্ধ্যায় পরিবারের লোকজন জোর করে মেয়েটিকে বাড়িতে নিয়ে যায়।

পরে রাত ১০টার দিকে স্বামী-স্ত্রীর মোবাইল ফোনে কথা হয়। একপর্যায়ে স্বামীকে সংযোগে রেখেই বি/ষ খায় মার্জিয়া। ফোনের অপর প্রান্ত থেকে বিষয়টি বুঝতে পেরে সবুজ দড়ি দিয়ে নিজের শ্বা/সরো/ধ করে নিজেই। উভয় পরিবারের লোকজন ঘটনাটি জানতে পেরে থানায় খবর দিলে পুলিশ ( police ) গিয়ে লা/শ উদ্ধার করে।

শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপক কুমার দাস জানান, রাতে পুলিশ ( police ) লা/শ দুটি উদ্ধার করা হয়েছে। লা/শ ময়/নাতদ/ন্তের জন্য বগুড়া শজিমেক হাসপাতাল ( Bogra Shajimek Hospital ) ম/র্গে পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, প্রেম ভালোবাসায় ব্যর্থ হয়ে বা পরিবারের সম্মতি না থাকায় অনেক যুবক যুবতি বিভিন্ন ধরনের ভুল পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। ওসি দীপক কুমার কুমার ( Deepak Kumar Kumar ) জানান এটা আসলে আ/ত্নহ/ত্যা নাকি হ/ত্যাকা/ন্ড তা এখনো স্পষ্ট নয় পূর্ণ তদন্ত ও হাসপাতালের ময়নাতদন্ত শেষে সম্পূর্ণ বিষয়টি বুঝতে পারবে আশা ব্যক্ত করেছেন তিনি।